শ্রীমঙ্গল পৌর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ, সুষ্টু শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

লেখক: Syed Sayed Ahmed
প্রকাশ: ৭ মাস আগে
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মো: মহসিন মিয়া।

নিজস্ব প্রতিবেদক:: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধ্বী প্রার্থীর আচরণবিধি লঙ্ঘনের প্রতিবাদ ও সুষ্টু শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের দাবীতে সংবাদ সম্মলন করেছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মো: মহসিন মিয়া।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) দুপুরে শহরের ভানুগাছ রোডস্থ একটি রেস্তোঁরায় এ সংবাদ সম্মেলন করে এ দাবী জানিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মহসিন মিয়া বলেন, নির্বাচনে অধ্যক্ষ সৈয়দ মনসুরুল হককে আমার নির্বাচনী প্রতিদ্বন্ধী হিসেবে পেয়ে আমি খুশি হয়েছিলাম। একজন শিক্ষক হিসেবে তার অনেক সুনাম রয়েছে।

কিন্তু প্রতীক বরাদ্দের পর প্রচারণা শুরুর পর থেকে শ্রীমঙ্গলে নির্বাচনী পরিবেশ অশান্ত হয়ে উঠেছে। আমার প্রতিদ্বন্দ্ধী নৌকা প্রতীকের কর্মী সমর্থকরা একের পর এক নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করে চলেছেন। মোটর সাইকেল যোগে আমার বাসার সামনে মহড়া দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালী ও আমার কর্মী সমর্থকদের আটকিয়ে পোস্টার ছিনিয়ে নিয়ে ছিঁড়ে ফেলা এবং নারী কর্মীদের কাছ থেকে ফেস মাস্ক ও পোস্টার ছিনিয়ে নিয়ে প্রচারণা কাজে বাধা দেয় যা নির্বাচন বর্হিভুত।

তিনি বলেন এই পৌরসভায় আমি দীর্ঘ সময় ধরে মেয়রের দায়িত্ব পালন করে আসছি। এই দীর্ঘ সময়ে আমার হাত ধরে এ পৌরসভা ৩য় শ্রেণী থেকে ১ম শ্রেণীতে উন্নীত হয়েছে। শহরের সৌন্দর্য বর্ধনে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। অনেক অবকাঠামো নির্মিত হয়েছে। শ্রীমঙ্গলের মতো সুন্দর পৌরসভা বাংলাদেশের মধ্যে দ্বিতীয়টি নেই। তাই পৌরসভা তথা শ্রীমঙ্গলের সৌন্দর্য ধরে রাখতে আমি নির্বাচন কমিশনের কাছে একটি সুষ্টু, সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের আশাবাদ ব্যক্ত করছি। এছাড়াও তিনি তার কর্মী সমর্থদের উপর হামলা, মামলা ও আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ জেরা নির্বাচন রিটানিং অফিসার, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা প্রশাসন,র‌্যাব, পুলিশসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত ভাবে জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে নৌকার প্রার্থী সৈয়দ মনসুরুল হকের সাথে মুঠোফোনে আলাপ হলে তিনি বলেন এসব অভিযোগ মিথ্যে ও বানোয়াট। আমার কোন কর্মী সমর্থকরা এ রকম কোন কাজ করেনি। আমি নিজেও আচরণবিধি লঙ্ঘন করিনি এবং আমার কর্মী সমর্থকদের বলেছি যাতে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে প্রচার প্রচারণা চালায়।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন জানান, তিনি স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মো: মহসিন মিয়া’র অভিযোগ পেয়েছেন। এব্যপারে স্থানীয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষে তদন্তপূর্বব প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি আরো বলেন ২৮ তারিখেন নির্বাচন বানচাল করা বা অস্থিতিশী পরিবেশ পরিলক্ষিত হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক জারীকৃত বিধি মোতাবেক কঠোর ও দৃষ্টান্তমুলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হবেন। নির্বাচনে আইন শৃংখলা ম্যাজিষ্ট্রেট, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশসহ অসংখ্যা ফোর্স নিয়োজিত থেকে সর্বদা সজাগ ও সর্তক অবস্থানে রয়েছে।

তিনি বলেন, শ্রীমঙ্গল পৌরসভার বাসিন্দ্রা বা ভোটা এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্টকর্মকর্তা, কর্মচারী ব্যতিত অন্য কোন এলাকার জনসাধারণকে পৌর সভার অভ্যান্তরে প্রবেশ এবং অবস্থান না করার জন্য তিনি অনুরোধ জানিয়েছেন। অন্যাতায় আইন শৃংখলা বাহিনি কাছে সন্দেহ হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করিবে।

মুক্তবার্তা২৪.কম/২০২১/১১/২৬-শ্রীসৈছাআ