ঢাকা ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪
ব্রেকিং নিউজ
Logo বাংলাদেশ সরকারের ২০২৪-২৫ অর্থ বছরের বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে ইউকে ওয়েলস আওয়ামী লীগের সভা অনুষ্ঠিত Logo মৌলভীবাজারে জাল টাকাসহ আটক-২ Logo ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস উপলক্ষে ওয়েলস আওয়ামী যুবলীগের সভা অনুষ্ঠিত Logo মৌলভীবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার হলেন ওসি বিনয় ভূষণ রায় Logo শ্রীমঙ্গলে যক্ষ্মা রোগ নিয়ন্ত্রণে ইমামদের নিয়ে নাটাবের আলোচনা সভা Logo ছাগল মোটাতাজা করার কৌশল: চিকিৎসা ও যত্নের সম্পূর্ণ গাইড Logo গাভি পালন ও দুধ উৎপাদন: লাভজনক কৌশল ও যত্নের টিপস Logo গরু পালন করে লাভবান হওয়ার কৌশল Logo শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভানু লাল রায় বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান হিসাবে নির্বাচিত Logo মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে চার সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি

শ্রীমঙ্গলে যক্ষ্মা রোগ নিয়ন্ত্রণে ইমামদের নিয়ে নাটাবের আলোচনা সভা

যক্ষ্মা রোগ নিয়ন্ত্রণে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছে স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান নাটাব, এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষ্মা  নিরোধ সমিতি (নাটাব) শ্রীমঙ্গল শাখার আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো আলোচনা সভা ।

আজ বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সকাল ১১ ঘটিকায় স্থানীয় গ্রান্ড তাজ রেষ্টুরেন্ট এন্ড পার্টি সেন্টারে শ্রীমঙ্গল উপজেলার বিভিন্ন মসজিদের ইমামদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হলো যক্ষা নিরোধ বিষয়ক আলোচনা সভা। ‘যক্ষ্মা হলে রক্ষা নাই, এই কথার ভিত্তি নাই’ এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে নাটাব শ্রীমঙ্গল শাখার সভাপতি ও বিএমএ সভাপতি ডা. হরিপদ রায়ের সভাপতিত্বে এবং নাটাব সাধারণ সম্পাদক শিক্ষক জহর তরপদারের সঞ্চালনায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে যক্ষা বিষয়ে বিশদভাবে আলোচনা করেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী। এছাড়াও এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গলের ফিল্ড সুপারভাইজার মাওলানা মো. আব্দুল বারী, সিরাজনগর হযরত গাউসুল আযম জামে মসজিদের মোতাওয়াল্লী ও খতিব মাওলানা ক্বারী শেখ দেওয়ান আহমেদ, হীড বাংলাদেশ শ্রীমঙ্গলের কো- অর্ডিনেটর মো. হীরা মিয়া, সুমন চৌধুরী, নাটাব শ্রীমঙ্গল শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক দেবব্রত দত্ত হাবুল প্রমূখ। এ সময় বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তি ছাড়াও আলোচনা সভায় বিভিন্ন মসজিদের ইমামগণ উপস্থিত ছিলেন।

যক্ষ্মা বাংলাদেশের একটি ঘাতক ব্যাধি এবং অন্যতম জনস্বাস্থ্য সমস্যা।  বিশ্বের যক্ষ্মা প্রবণ ২২টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সাত নম্বরে এবং ৫০% লোকের যক্ষ্মায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি ২.১৬%। কিছুদিন আগে শেষ হওয়া জাতীয় যক্ষ্মা জরিপ ২০১৫-২০১৬ হতে জানা যায় বছরে মোট যক্ষ্মা রোগীর সংখ্যা প্রতি লাখে ২৬০জন আর নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা প্রতি লাখে ২২১জন। যদিও তা গত বছরগুলোর অনুমাননির্ভর পরিসংখ্যানের চাইতে কম কিন্তু এখনও যক্ষ্মায় মৃত্যুহার প্রতি লাখে ৪৫জন।

মুক্তবার্তা২৪.কম/ ২০২৪/০৬/০৬ সউহে

বাংলাদেশ সরকারের ২০২৪-২৫ অর্থ বছরের বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে ইউকে ওয়েলস আওয়ামী লীগের সভা অনুষ্ঠিত

শ্রীমঙ্গলে যক্ষ্মা রোগ নিয়ন্ত্রণে ইমামদের নিয়ে নাটাবের আলোচনা সভা

আপডেট সময় ০২:২৬:৫৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুন ২০২৪

যক্ষ্মা রোগ নিয়ন্ত্রণে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছে স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান নাটাব, এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষ্মা  নিরোধ সমিতি (নাটাব) শ্রীমঙ্গল শাখার আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো আলোচনা সভা ।

আজ বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সকাল ১১ ঘটিকায় স্থানীয় গ্রান্ড তাজ রেষ্টুরেন্ট এন্ড পার্টি সেন্টারে শ্রীমঙ্গল উপজেলার বিভিন্ন মসজিদের ইমামদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হলো যক্ষা নিরোধ বিষয়ক আলোচনা সভা। ‘যক্ষ্মা হলে রক্ষা নাই, এই কথার ভিত্তি নাই’ এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে নাটাব শ্রীমঙ্গল শাখার সভাপতি ও বিএমএ সভাপতি ডা. হরিপদ রায়ের সভাপতিত্বে এবং নাটাব সাধারণ সম্পাদক শিক্ষক জহর তরপদারের সঞ্চালনায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে যক্ষা বিষয়ে বিশদভাবে আলোচনা করেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী। এছাড়াও এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গলের ফিল্ড সুপারভাইজার মাওলানা মো. আব্দুল বারী, সিরাজনগর হযরত গাউসুল আযম জামে মসজিদের মোতাওয়াল্লী ও খতিব মাওলানা ক্বারী শেখ দেওয়ান আহমেদ, হীড বাংলাদেশ শ্রীমঙ্গলের কো- অর্ডিনেটর মো. হীরা মিয়া, সুমন চৌধুরী, নাটাব শ্রীমঙ্গল শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক দেবব্রত দত্ত হাবুল প্রমূখ। এ সময় বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তি ছাড়াও আলোচনা সভায় বিভিন্ন মসজিদের ইমামগণ উপস্থিত ছিলেন।

যক্ষ্মা বাংলাদেশের একটি ঘাতক ব্যাধি এবং অন্যতম জনস্বাস্থ্য সমস্যা।  বিশ্বের যক্ষ্মা প্রবণ ২২টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সাত নম্বরে এবং ৫০% লোকের যক্ষ্মায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি ২.১৬%। কিছুদিন আগে শেষ হওয়া জাতীয় যক্ষ্মা জরিপ ২০১৫-২০১৬ হতে জানা যায় বছরে মোট যক্ষ্মা রোগীর সংখ্যা প্রতি লাখে ২৬০জন আর নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা প্রতি লাখে ২২১জন। যদিও তা গত বছরগুলোর অনুমাননির্ভর পরিসংখ্যানের চাইতে কম কিন্তু এখনও যক্ষ্মায় মৃত্যুহার প্রতি লাখে ৪৫জন।

মুক্তবার্তা২৪.কম/ ২০২৪/০৬/০৬ সউহে